21 February, 2024
[সহবাসের কতদিন পর গর্ভবতী হয়; গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ কত দিন পর বোঝা যায়; সহবাসের কতদিন পর বমি হয়; পিরিয়ডের কতদিন পর সহবাস করলে গর্ভবতী হয়; মাসিকের কত দিন পর সহবাস করলে গর্ভবতী হয় না; পিরিয়ডের কত দিন পর সহবাস করলে সন্তান হবে]

সহবাসের কতদিন পর গর্ভবতী হয় ?

[সহবাসের কতদিন পর গর্ভবতী হয়; গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ কত দিন পর বোঝা যায়; সহবাসের কতদিন পর বমি হয়; পিরিয়ডের কতদিন পর সহবাস করলে গর্ভবতী হয়; মাসিকের কত দিন পর সহবাস করলে গর্ভবতী হয় না; পিরিয়ডের কত দিন পর সহবাস করলে সন্তান হবে]

[সহবাসের কতদিন পর গর্ভবতী হয়; গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ কত দিন পর বোঝা যায়; সহবাসের কতদিন পর বমি হয়; পিরিয়ডের কতদিন পর সহবাস করলে গর্ভবতী হয়; মাসিকের কত দিন পর সহবাস করলে গর্ভবতী হয় না; পিরিয়ডের কত দিন পর সহবাস করলে সন্তান হবে]

Q: সহবাসের কতদিন পর গর্ভবতী হয় ?

সহবাস করার পর এই যে একজন নারী সব সময় গর্ভবতী হবেন বিষয়টা এমন নয়। গর্ভাবস্থায় সম্পূর্ণরূপে নির্ভর করে পিরিয়ডের দিন এর ওপর। চলুন আজকে আমরা এ ব্যাপারে বিস্তারিত জেনে নেই।

সহবাসের পর স্পার্ম বা শুক্রাণু নারীর জরায়ুর ভেতরে প্রবেশ করে সর্বোচ্চ পাঁচ দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। যদি কোন নারী তার পিরিয়ড শুরু হবার ১৪ তম দিনে কিংবা তার আশেপাশে কোন সুরক্ষা ব্যবস্থা ছাড়াই সহবাস করে তবে তার গর্ভবতী হবার সম্ভাবনা বেশি। সুতরাং সঠিক সময়ে যদি সহবাস করা হয় তবে সহবাসের চার থেকে পাঁচ দিন পরেই সেই নারী গর্ভবতী হয়ে পড়বেন। তবে পিরিয়ডের ১৪ তম দিন কিংবা এর আশেপাশের তারিখ ছাড়াও একজন নারী গর্ভবতী হতে পারেন কিন্তু সেই সম্ভাবনা টা অনেক কম। আবার প্রথমবার মিলন এই যে একজন নারী গর্ভবতী হয়ে পড়বেন বিষয়টা এমন নয়। এটি সম্পূর্ণরূপে নির্ভর করে নারী এবং পুরুষের শারীরিক সুস্থতা ও পিরিয়ডের উর্বর দিনগুলোর ক্রমের উপর।


 

পিরিয়ডের কতদিন পর সহবাস করলে গর্ভবতী হয় ?

মহিলাদের গর্ভধারণ তাদের পিরিওডের চক্রের সাথে সম্পূর্ণরূপে সম্পর্কিত। শারীরিকভাবে সুস্থ প্রত্যেক মহিলার পিরিওডের চক্র ধরা হয় ২৮ থেকে ৩৩ দিন। চিকিৎসা বিজ্ঞান অনুযায়ী পিরিয়ড শুরু হবার আগের সাত দিন এবং পরের ৭ দিন নিরাপদ সময় হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে। অর্থাৎ আপনার পিরিওডের তারিখ যদি মাসের ১৫ তম দিন হয় তবে ১৫ তারিখের আগে ৭ দিন এবং পরের সাত দিন নিরাপদ সময়। এই সময়ে আপনি যেভাবেই সহবাস করেন না কেন গর্ভধারণের সম্ভাবনা একেবারে থাকে না বললেই চলে। কিন্তু এই সময়ের বাহিরে যে দিনগুলো রয়েছে সেগুলোকে উর্বর সময় হিসেবে ধরা হয়। অর্থাৎ এই অল্প সময়ে যদি বীর্য কোন ভাবে আপনার যোনির ভেতরে প্রবেশ করে তবে নিশ্চিতভাবে আপনি গর্ভবতী হবেন। তবে এই হিসেব শুধু তাদের জন্য যাদের নিয়মিত মাসিক হয়।


গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ কত দিন পর বোঝা যায় ?

অনেকের মদ্ধেই একটা প্রশ্ন কাজ করে যে গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ কত দিন পর বোঝা যায়। সাধারণত মাসিক মিস হওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যে ৯০ শতাংশ মহিলাদের গর্ভধারণের লক্ষণ গুলো দেখা দিতে পারে। অনেকের হয়তো এর আগেও বোঝা যেতে পারে। কিন্তু প্রেগনেন্সির সম্পূর্ণ লক্ষণ প্রকাশ পেতে ৬ থেকে ৮ সপ্তাহ পর্যন্ত সময় লেগে যেতে পারে। তবে পিরিয়ড মিস হওয়ার আগে গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ রয়েছে।


Source: Doctlab

মিলনের কত দিন পর প্রেগন্যান্সি টেস্ট করতে হয় ?

মিলনের পর প্রেগন্যান্সি টেস্ট করার সঠিক সময় হলো পিরিয়ডের তারিখ পার হবার অন্তত ১০ দিন পর। কারণ পিরিয়ড মিস হওয়ার আগে গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ দেখা যায়না বললেই চলে। 

পিরিয়ড মিস হবার কমপক্ষে ১০ দিন পর প্রেগন্যান্সি টেস্ট করতে হবে।
যদি প্রথম বার নেগেটিভ আসার পরেও পিরিয়ড না হয় তাহলে ৫ দিন পর পুনরায় টেস্ট করা উচিত।

গর্ভবতী হওয়ার লক্ষণ কত দিন পর বোঝা যায় ?

৯০% মহিলার লক্ষণ প্রকাশ পেতে 8 মাস সময় লেগে যায়। তবে মাসিক মিস হওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যে স্ট্রিপ দিয়ে পরীক্ষা করলে প্রেগনেন্সি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়। সবচেয়ে কার্যকরী উপায় হল মূত্র পরীক্ষা করার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া। স্ট্রিপ দিয়ে পরীক্ষা করলে অনেক সময় ভুল ফলাফল আসে যদিও সেটার সংখ্যা খুবই কম।

One thought on “সহবাসের কতদিন পর গর্ভবতী হয় ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *